2022 Pakistan floods: ভয়াবহ বন্যায় বিপর্যস্ত পাকিস্তান! সমস্ত বিবাদ ভুলে পাকিস্তানকে সমবেদনা জানিয়েছেন মোদী

2022 Pakistan floods: বিশ্বের বিপর্যয় যেন থামছেই না।একের পর এক দুর্যোগ চলছেই। বিগত দুবছর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া আতংকের নাম ছিল করোনা ভাইরাস। চীন থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে গেছিল সারা বিশ্বে। অন্যান্য দেশগুলোতেও এই ভাইরাস হাহাকার ফেলে দিয়েছিল। গোটা দেশে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যায় লাগাম টানা অসম্ভব হয়ে পড়েছিল। দেশ জুড়ে হাসরাতালগুলিতে বেড, ওষুধ ও অক্সিজেনের হাহাকার দেখা দিয়েছিল।

অক্সিজেন সমস্যা সবথেকে প্রকট হয়ে দেখা দিয়েছিল। যার ফলে জীবনদায়ী অক্সিজেনের অভাবে প্রাণ হারিয়েছেন বহু মানুষ।অক্সিজেন ও প্রয়োজনীয় ইনজেকশনের ঘাটতি পড়েছিল গোটা দেশে।কোন কোন দেশে সারি সারি ভাবে গণ কবরও দেওয়া হয়েছে। যা দেখে গোটা বিশ্বের মানুষ আর বেশি আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিল। এখন বিশ্বের পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়েছে।

Advertisement

এসবের মধ্যে ফের দুর্যোগ ঘনিয়ে এসেছে পাকিস্তানের ওপরে। ভয়াবহ বন্যায় বিপর্যস্ত পাকিস্তান। পাকিস্তানে বন্যায় হাজার হাজার হেক্টর জমি জলের তলায়।তিন কোটিরও বেশি মানুষ ঘরছাড়া। প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান আজ কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দেশে আগে থেকেই অর্থনৈতিক সংকট ছিল, এখন বন্যা বিপর্যয় সৃষ্টি করেছে।

শুধু তাই নয়, মানুষের সামনে খাবার-পানীয় জলের সংকটও সংকটও বেড়েছে। পাকিস্তানে যেন হাহাকার চলছে। এ পর্যন্ত পাকিস্তানে প্রাণ হারিয়েছে ১১০০ বেশি মানুষ। পাকিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে ভারী বর্ষণের পর বন্যা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। সিন্ধু নদী পাকিস্তানের জন্য অভিশাপে পরিণত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ ও সেনাপ্রধান জেনারেল কামার বাজওয়া বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

ভয়াবহ বন্যা পাকিস্তানে যে কতটা ভয়াবহ সংকট ডেকে এনেছে তা অনুমান করা যায়। প্রায় ৩.৩ কোটি জনসংখ্যার দেশটির মোট জনসংখ্যার প্রায় এক সপ্তমাংশকে তাদের বাড়িঘর ছেড়ে যেতে হয়েছে। পাকিস্তানের অর্থনৈতিক সঙ্কট এবং বন্যা শুধু সমস্যার কারণই নয়, তালিবান বিদ্রোহও পাকিস্তানের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে পড়েছে।অর্থনৈতিক মন্দার মুখে থাকা পাকিস্তান বিশ্বের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ সরকারের সাহায্যের আবেদনের পর আন্তর্জাতিক সাহায্য পৌঁছাতে শুরু করেছে। পাকিস্তানের পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বের অনেক দেশ সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসতে শুরু করেছে। পাকিস্তানে সাহায্য পাঠিয়েছে তুরস্ক ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহী। কার্গো বিমানে খাদ্যদ্রব্য ও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পাঠানো হয়েছে। IMF পাকিস্তানকে১.৭ বিলিয়ন ডলার সহায়তা দিয়েছে।

অন্যান্য দেশের পাশাপাশি ভারতও সমস্ত বিবাদ ভুলে পাকিস্তানকে সমবেদনা জানিয়েছেন। এই বন্যার পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইট করে শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, “পাকিস্তানে বন্যায় যে ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হয়েছে তা দেখে দুঃখিত। আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের পরিবার, আহত এবং এই প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত সকলের প্রতি আমাদের সমবেদনা জানাই এবং দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থা পুনরুদ্ধারের প্রত্যাশা করছি”।

এমন পরিস্থিতিতে ভারত শীঘ্রই সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসতে পারে বলে পাকিস্তানে আশা জেগেছে। ভারতের সাহায্যের দিকেও তাকিয়ে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ। এই সংকটের সময়ে ভারত থেকে সবজি ও তেল আমদানি করতে চায় পাকিস্তান।সমস্ত বিবাদ ভুলে ভারত কি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে পড়শি দেশের প্রতি? এখন সেটাই দেখার।

পাকিস্তানে বন্যার ক্ষতি কত?

প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলাকারী প্রধান জাতীয় সংস্থা জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের সোমবার প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী বন্যার কারণে ১৬৩৪ জন আহত হয়েছেন। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে প্রায় ৯,৯২,৮৯১ টি বাড়ি সম্পূর্ণ বা আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।প্রায় লক্ষাধিক মানুষ খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানীয় জল ইত্যাদি থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।

এছাড়াও অবিরাম বর্ষণে প্রায় ৭ লাখ ৩৫ হাজার ৩৭৫ লাখ পশু নিখোঁজ এবং লাখ লাখ একর উর্বর জমি তলিয়ে গেছে।পাকিস্তানি কর্মকর্তারা বলছেন যে মৃতের সংখ্যা অনেক বেশি হতে পারে কারণ খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশের হাজার হাজার গ্রাম দেশের বাকি অংশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এবং নদী উপচে পড়ায় রাস্তাঘাট এবং সেতু ধ্বংস হয়ে গেছে।

২০১০ সালেও ভয়াবহ বন্যার সাক্ষী থেকেছে পাকিস্তান। পাকিস্তানে এখনকার বন্যায় সৃষ্ট ধ্বংসযজ্ঞ ২০১০ সালের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। ১২ বছর আগে পাকিস্তানে বন্যার কারণে এক হাজার ৭০০ জন মারা গিয়েছিল।

Advertisement

Related Articles