নিউজ

নন্দীগ্রামের বিজেপি নেতার কাছে সাহায্যের আর্জি জানিয়ে ফোন খােদ মুখ্যমন্ত্রীর, কথাবার্তার অডিও ফাঁস

নন্দীগ্রামের বিজেপি নেতার কাছে সাহায্যের আর্জি জানিয়ে ফোন খােদ মুখ্যমন্ত্রীর, কথাবার্তার অডিও ফাঁস

নিউজ দেস্কঃ একুশের ভােটযুদ্ধের প্রথম দফার ভােটগ্রহণ শুরু হয়েছে।প্রথম দফার বিধানসভা নির্বাচনের দিনেই রাজ্যের রাজনীতিতে এক নতুন বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়ে উঠলাে।ফাঁস হল একটি বিস্ফোরক অডিও ক্লিপ। যেখানে নন্দীগ্রামের স্থানীয় বিজেপি নেতা প্রলয় পালের কাছে ভােটের জন্য সাহায্য চাইতে শােনা গেল তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।যদিও সেই অডিও ক্লিপের সত্যতা যাচাই করেনি, তা সংবাদমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে তাঁকে ফোন করেছিলেন তা স্বীকার করেছেন স্থানীয় বিজেপি নেতা প্রলয় পাল।ভােট শুরু হওয়ার পরমুহূর্তেই ওই বিজেপি নেতা এই অডিওটি ফাঁস করেছেন।

বিজেপির তমলুক সাংগঠনিক জেলার সহ সভাপতি প্রলয় পালকে ফোন করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রলয় পালের পরিচয় ২০১১-র পরিবর্তনের সময় তৃণমূলেই ছিলেন।পরে তিনি দলবদল করে বিজেপিতে যােগ দেন। এবারের নির্বাচনে সাহায্য চেয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকেই ফোন করেন বলে দাবি করা হয়েছে।তমলুক সাংগঠনিক জেলার মধ্যেই পড়ছে নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রটি।যে কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রাক্তন সদস্য শুভেন্দু অধিকারী এবং খােদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখােমুখি। ফলে স্বভাবতই এই কেন্দ্রটির প্রতি রাজনৈতিক মহলের এক আলাদাই আকর্ষণ রয়েছে।

আরও পড়ুন :  রকেট হামলাই কাবুলে মুহুর্মুহু বিস্ফোরণ, পম্পিও-তালিবান বৈঠকের আগেই তছনছ, মৃত অন্তত ৮

অডিও ক্লিপের এই রেকর্ডের মহিলাকণ্ঠকে বলতে শােনা যাচ্ছে, এইবার আমাদের একটু সাহায্য করে দাও,কথা দিচ্ছি তােমার কোনাে অসুবিধা হবে না।আর এর উত্তরে পুরুষ কন্ঠের জবাব, বিজেপি দলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করতে পারবেন না তিনি। এরপর মহিলাকন্ঠে বলতে শােনা গেল, এখনকার যে বিজেপি নেতারা রয়েছেন তারা কি সৎ? তার জবাবে পুরুষ কণ্ঠের বক্তব্য, তাঁদেরকে তিনি সৎ বলে মনে করেন এবং যতদিন দলকে সৎ বলে মনে করবেন, ততদিন তিনি ওই দলের সঙ্গেই থাকবেন।

পাশাপাশি অধিকারী পরিবারের প্রসঙ্গও উঠেছে এই কথােপকথনে।পুরুষ কন্ঠের দাবি, অধিকারী পরিবার সাধারণ মানুষের রক্ষাকর্তা। তাই শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে তিনি কিছু করতে পারবেন না। তবুও মহিলা কন্ঠের আর্জি, একটু ভেবে দেখাে। সাহায্য না করতে পারার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছে ওই নেতা।আর এই রেকর্ড ফাঁস হতেই তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে প্রবল চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button