লাইফস্টাইল

অতীত ভুলতে পারছেন না,এখনাে কি তাকে ভালােবাসেন?

অতীত ভুলতে পারছেন না,এখনাে কি তাকে ভালােবাসেন

অনেক আশা-স্বপ্ন, ভালোবাসা-মমতা, শ্রম সাধনা দিয়ে তিল তিল করে গড়ে উঠে যে কোন সম্পর্ক।আর কোন কারনে যদি এই মমতায় জড়ানো, স্বপ্ন মাখানো সাধনার সেই সৌধ হঠাৎ একদিন ভেঙে পড়লে, তছনছ হয়ে বুকের পাঁজর ভেঙে যায় আমাদের।তা প্রেমের সম্পর্ক হোক বা বিবাহের।সে কষ্ট, সে বেদনা, সে আর্তনাদ কতজনই বা শুনতে পায়।এই বিচ্ছেদের পর প্রথম কয়েকটা মাস অসহ্য যন্ত্রণায় ঘুরে ফিরে বার বার কেবল তার কথাই মনে হয়।অন্যকে ঘৃণা করে জীবনের মূল্যবান সময় নষ্ট করার চেয়ে এগিয়ে যাওয়াই উত্তম।আর একা কাঁদার চেয়ে অন্যের সঙ্গে দুঃখ ভাগ করে নিলে কষ্ট অনেক কমে যায়।

 

আরও পড়ুন :  বাস্তুশাস্ত্র মতে কোন কোন গাছ ঘরে রাখলে তা আমাদের জীবন সৌভাগ্য এবং সম্পদে পূর্ণ করবে, দেখে নিন

প্রেমের সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পরও যদি ছেলে বা মেয়েটি যখন পুরনাে ভালােবাসার মানুষকে লক্ষ্য করে জোরে জোরে বকাবকি বা রাগের কথা বলে, তাহলে বুঝতে হবে যে সে তার প্রেমিক বা প্রেমিকাকে কিছুতেই ভুলতে পারছে না।আর অন্যদিকে কেউ যদি স্বাভাবিকভাবে কথা বলে, বুঝতে হবে যে পুরনাে সম্পর্কটা তার কাছে চুড়ান্তভাবেই শেষ হয়ে গেছে।জীবনসঙ্গী, পার্টনার বা স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একজন যদি সুস্থ ও সুখি থাকে, তাহলে অপরজনও স্বাভাবিকভাবে সুখি ও সুস্থ বােধ করে। আসলে সুখি ও সুস্থ মানুষের কাছ থেকে বেশি সহানুভূতি প্রত্যাশা করতে পারেন।

যে কোন যুগল জীবনের চলার পথে ঝগড়া, রাগ, অভিমান থাকাটা খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু তাই বলে তাে আর এসব নিয়ে বসে থাকলে চলবে না। বরং ঝগড়া বা মন খারাপ হলে বর্তমানকে না ভেবে আগামী বছর দু’জন মিলে কিছু করার কথা ভাবুন তাহলে দেখবেন দ্বন্দ্ব মিটে গিয়ে সব সহজ হয়ে গেছে।আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় বিরহে পুরুষরা বেশি কষ্ট পায়।ডিভাের্স বা আলাদা থাকা যে কোনাে কারণে বিবাহিত জীবনের ইতি ঘটলে স্ত্রীর তুলনায় স্বামী কষ্টে বেশি ভােগে। এমনকি একারণে বয়স্ক স্বামীর মৃত্যু এগিয়ে আসতে পারে।তাই মন খারাপ বা ঝগড়া হলে বিয়ােগান্তক নাটক বা সিনেমা দেখুন, কাঁদুন,চোখের জল ফেলুন। কারণ চোখের জল রাগ, দুঃখ, ব্যথাকে চাপা দিয়ে আবেগকে জাগিয়ে তােলে এবং একসাথে মিলে-মিশে থাকার আগ্রহ বাড়িয়ে দেয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button