লাইফস্টাইল

শরীরের অতিরিক্ত ঘাম থেকে দুর্গন্ধ ! কিভাবে মিলবে মুক্তি জেনে নিন এক ঝলকে।

শরীরের অতিরিক্ত ঘাম থেকে দুর্গন্ধ ! কিভাবে মিলবে মুক্তি জেনে নিন এক ঝলকে।

গরম মানেই ঘাম আর ঘাম মানেই শরীরে চিটচিটে ভাব। আর সেই অবস্থা থেকে শুরু হয় দূর্গন্ধ।গরম মানে ঘাম হবে এটাই স্বাভাবিক।তবে অনেকেই এই ঘামের দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি পাবার জন্য ডিওডোরেন্ট, পারফিউম ইত্যাদি ব‍্যবহার করে থাকেন।তবে এতে সাময়িকভাবে দুর্গন্ধ থেকে মুক্তি মিললেও উল্টে দীর্ঘক্ষণ ধরে শরীরের ঘামের সংস্পর্শে পারফিউমের গন্ধ মিশ্রিত হয়ে আরো বিদঘুটে গন্ধ তৈরী হয়।

তবে খুব সহজ কতগুলো নিয়ম মেনে চললে আর এসব ব‍্যবহার করতে হবেনা।চলুন দেখে নেই সেই নিয়মগুলো।

আরও পড়ুন :  গবেষণায় নতুন আশার আলো, ছোঁবে না বার্ধক্য, টিকা নিলেই অটুট থাকবে যৌবন !

নিয়মিত স্নান:

প্রতিদিন নিয়মিত স্নান করুন।অ্যান্টি ব‍্যাকটেরিয়াল সাবান দিয়ে নিজের বগল পরিস্কার করুন।স্নানের পর ভালোভাবে সমস্ত জায়গা বিশেষ করে যেসব জায়গা ঘামে যেমন বগল,স্তনের ভাজ,কনুই ইত্যাদি জায়গা ভালো ভাবে শুকনো করে মুছে নিন।মনে রাখবেন এইসব এলাকা ভালো করে শুকনো করে মুছে নিলে ঘামের গন্ধ থেকে রেহাই মিলবে।

সুতি কাপড় পরা:

নিয়মিত সুতির কাপড় এবং ধোয়া পরিস্কার কাপড় পরা উচিত।হালকা ঢিলেঢালা পোশাক পড়া উচিত।এতে ঘাম কম হয়।শরীরে আরামদায়ক অনুভব হয়।

জল পান:

গরমকালে সবচেয়ে দরকারি হলো নিজেকে হাইড্রেটেড রাখা।দিনে অন্তত ২ থেকে ৩ লিটার জল পান করুন।এতে শরীর থেকে টক্সিন মুক্ত হবে।আর টক্সিন মুক্ত হলে শরীরে ঘামের গন্ধ বেশি হবেনা।

অ্যান্টি পারসপিরান্ট:

কোন ভালো অ্যান্টি পারসপিরান্ট ব‍্যবহার করতে পারেন।ডিওডোরান্ট থেকে ব্রেস্ট ক‍্যানসারের সম্ভাবনা থাকলেও অ্যান্টি পারসপিরান্টে সে ভয় নেই।তাছাড়া অ্যান্টি পারসপিরান্ট বগলের ঘাম শুষে নিয়ে অনেক্ষন বগল শুস্ক রাখতে সাহায্য করে।

Related Articles

Back to top button