বিনোদন

অভিনেত্রী তৃণার ছেলে হয়েছে! কিন্তু নাতির মুখ দেখে যেতে পারলেন না প্রয়াত অভিষেক

গুনগুন পুত্রসন্তানের জন্ম দিয়েছে।তাই মুখোপাধ্যায় পরিবারের সবাই আনন্দে ভাসছে।সৌজন্য থেকে মিষ্টি, পটকা, জেঠাই সবাই খুশিতে ডগমগ।কিন্তু মেয়ের এই চরম খুশির দিন দেখে যেতে পারলেন না ড্যাডি।পর্দায় মেয়ের সন্তানের মুখ দেখার আগেই বিদায় নিয়েছেন খড়কুটো ধারাবাহিকে সদ্য প্রয়াত চিকিৎসক কৌশিক বসু ওরফে অভিনেতা অভিষেক চট্টোপাধ্যায়।তাই এতো আনন্দের মাঝেও একটু মন খারাপ থেকেই গেছে দর্শক থেকে শুরু করে মুখার্জি বাড়ির সবার মনে।

প্রয়াত অভিনেতা অভিষেক ‘খড়কুটো’, ‘মোহর’, ‘ইস্মার্ট জোড়ি’ সহ একাধিক ধারাবাহিক, রিয়্যালিটি শো জুড়ে ছিলেন।তাই স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠেছিল, ধারাবাহিকে তাঁর শূন্যস্থান পূরণ করবে কে? ‘মোহর’-এ প্রথম চিত্রনাট্য বদলে দেখানো হয়, শঙ্খের বাবা আদি সারের মৃত্যু হয়েছে। অবশ্য তার কিছুদিন পরেই ধারাবাহিক শেষ হয়ে যায়। কিন্তু ‘খড়কুটো’ সেই পর্যায়ে নেই।গুনগুন ওরফে তৃণা সাহা যখন অন্তঃসত্ত্বা সেই সময়েই মৃত্যু হয় তার ড্যাডির।তাই সবাই মনে করে তাহলে হয়তো অন্য কাউকে সেই চরিত্রে আনা হবে।

আরও পড়ুন :  গায়ক অরিজিৎ সিং এবার নতুন ভূমিকায় ! জিয়াগঞ্জে নিজের স্কুলের পরিচালন সমিতির সভাপতি হলেন গায়ক

কিন্তু না পটকা ওরফে অম্বরীশ ভট্টাচার্য জানিয়েছিলেন, অভিষেক চট্টোপাধ্যায়ের পরিপূরক কেউ হতে পারবেন না। দর্শকেরাও তাঁর জায়গায় কাউকে মেনে নিতে পারবেন না। তাই কাহিনিকার ধীরে ধীরে তার মৃত্যু সংবাদ সামলে আনলেন। গুনগুন হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার আগে মুখোপাধ্যায় পরিবারের সবাই জানতে পারেন, ডা. কৌশিক বসু মারা গিয়েছেন। শুধু জানে না তাঁর পর্দার মেয়ে গুনগুন।

আরও পড়ুন :  ফের খোলামেলা পোশাকে ভিডিও দিলেন শার্লিন চোপড়া

বাস্তবে মা হওয়ার আগে রিল লাইফেই মা হয়ে গেলেন তৃণা। আনন্দবাজার অনলাইন অভিনেত্রীর কাছে প্রশ্ন রেখেছিল ড্যাডিকে কি খুব মনে পড়ছে ? তৃণার জবাব আমার পর্দার ড্যাডি থাকলে আজ দৃশ্যগুলোই অন্য রকম হত।ড্যাডি তো ভীষণ মজার মানুষ ছিলেন।এরপর প্রশ্ন করেন স্বামী নীল ভট্টাচার্য কী বলছেন? এর উত্তরে অভিনেত্রী হেসে বলেন আমরা অভিনয় করি, তাই পর্দা আর বাস্তবকে গুলিয়ে ফেলি না।তবে নীলও মজা করে জানতে চেয়েছিল,কী হল?মেয়ে না ছেলে।

Related Articles

Back to top button