পেটের ক্ষুধা মেটানোর জন্য নিজের সন্তান বিক্রি করছে অসহায় মা-বাবা।

সন্তান বিক্রি করছে অসহায় মা-বাবা।

সর্বনাশী ক্ষুধার জ্বালা দাবানল সম; ভীষণ ক্ষুধার্ত মোরা দাও খেতে কেহ! সত্যি এই ক্ষুধার জ্বালা বড় জ্বালা, এই চরম সত্যের কাছেই যেন হার মানল মা-বাবার ভালোবাসা। অভাবের তাড়নায় খাদ্য বস্ত্রের ন্যূনতম চাহিদা মেটাতে মা-বাবা নিজেদের সন্তান বিক্রি করছেন। খাবার জোগানোর অর্থ পেতে আফগানরা সন্তান বিক্রি করছেন।

দেশটিতে হাহাকার চলছে। খাবারের জন্য সকলেই হন্যে হয়ে ছুটছে। চারিদিকে খাবারের জন্য হাহাকার চলছে, নেই তেমন কাজের সুযোগ। অনেকে কাজ হারিয়ে চরম আর্থিক সঙ্কটে পড়েছে আফগানিস্তানে সাধারণ মানুষ। তারা পাগলের মতো হন্যে হয়ে চাকরি খুঁজছেন। দু’বেলা দু’মুঠো খাবার জোটাতে পারছে না। তার ওপর সারাদেশেই দ্রব্যমূল্য আকাশ ছোঁয়া।

Advertisement

এই পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়ে কেউ ঘরের আসবাবপত্র বিক্রি করছেন। আবার কেউ বিক্রি করছেন শরীরের অঙ্গও। কেউ আবার বাধ্য হয়ে নিজের সন্তানকেই বিক্রি করছেন। ক্ষুধা ও নানা সমস্যায় জর্জরিত আফগানদের জীবন। দেশটি চরম আর্থিক সংকটে পড়েছে। দেশটির নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

Fifa World Cup – কাতারে নিয়ম লঙ্ঘন করে জনসমক্ষে জার্সি তুলে বক্ষযুগল দেখিয়ে ভাইরাল ইংরেজ যুবতী !

একটানা যুদ্ধের ফলে দেশটির অর্থনীতি এবং অবকাঠামো বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছে। তার ওপর যুক্ত হয়েছে খরা এবং করোনা মহামারির মতো বিষয়। এর ফলে দেশটিতে খাদ্য এবং অন্যান্য মৌলিক উপকরণের অভাবে বিপর্যস্ত মানবজীবন। আফগানিস্তানের লাখ লাখ মানুষ এখন দুর্ভিক্ষের মুখে।

আফগানিস্তানে ক্ষমতার পালাবদল হওয়ার এক বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও দেশটির মানুষের অর্থনৈতিক পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। অনেক পরিবার দুবেলা দুমুঠো খাবার পাচ্ছে না। সরকারি ও বেসরকারি সহায়তাও দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ। তাই খাবারের জোগান দিতে কেউ কেউ সন্তান বিক্রি করছেন।

হেরাতের অদূরে একটি বস্তি এলাকায় ওয়াহাবের পরিবার বাস করে। যুদ্ধ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং নানা কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষরা কয়েক দশক ধরে এই বসতি গড়ে তুলেছে। তারা সকালের দিকে কয়েক টুকরা রুটি খায়। আর রাতের জন্য কয়েক টুকরা রুটি পানিতে ভিজিয়ে রাখে যাতে সেগুলো ফুলে বড় হয়।

খাবার কেনার টাকা না থাকায় এই বসতির এক বাসিন্দা হযরতুল্লাতও নিজের মেয়েকে বিক্রি করেছেন। স্থানীয় মসজিদে ঘোষণা দিই, আমার মেয়েকে বিক্রি করতে চাই। ১৪ বছর বয়সে স্বামীর বাড়িতে পাঠানো হবে তাকে। মেয়েকে আগাম ‘বিক্রি করে’ দুই দফায় অর্থ পেয়েছেন অসহায় বাবা হযরতুল্লাত।

আফগানরা শুধু সন্তান বিক্রি করছেন না, কেউ কেউ নিজের শরীরের কিডনির মতো অঙ্গপ্রত্যঙ্গ পর্যন্ত বিক্রি করছেন। ২০ বছর বয়সী এক আফগান যুবক জানান তিনি নিজের কিডনি বিক্রি করেছেন দুই লাখ ৭০ হাজার আফগানি মুদ্রার বিনিময়ে।

আফগানি নারী বলেন এখন আমি আমার দুই বছর বয়সী মেয়েকেও বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছি। ঋণের অর্থের বিনিময়ে পাওনাদাররা মেয়েকে চাচ্ছে। তাই এই আফগানি নারী নিজের কিডনি বিক্রির পর, দুই বছর বয়সী মেয়েকে বিক্রির কথা চিন্তা করছেন।

এর আগে এক লাখ আফগানির বিনিময়ে পাঁচ বছর বয়সী মেয়েকে বিক্রি করে দিয়েছেন। একদিকে খাবারের হাহাকার চলছে। তার ওপর তীব্র শীত আসছে, এরফলে বাড়ছে শঙ্কা। বর্তমানে দেশটি তীব্র বিপর্যয়কর অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।
সূত্র : বিবিসি

বলিউডে অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন এর আসল নাম জানলে অবাক হবেন।

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *