নিউজ

অশ্রাব্য গালিগালজ ও খিস্তি দিয়েই পকেট ভরছে রোদ্দুর রায়ের, মাসে কত টাকা উপার্জন করেন শুনলে চোখ কপালে উঠবে

বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চার অন্যতম কেন্দ্রবিন্দু ইউটিউবার রোদ্দুর রায়।সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন অথচ রোদ্দুর রায়ের (Roddur Roy) নাম শোনেননি কিংবা ফেসবুকের ভিডিও স্ক্রল করতে করতে রোদ্দুর রায়ের ভিডিও চোখে পড়েনি এমন নেটিজেনের সংখ্যা হাতেগোনা।নেটমাধ্যমে মণীষীদের গালিগালাজ করা থেকে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে কুরুচিকর ভাষায় আক্রমণ- এই করেই দিব্ব্যি ফেমাস রোদ্দুর রায়।

তার আসল নাম অনির্বাণ রায়, তবে রোদ্দুর রায় নাম ভাঁড়িয়ে ইউটিউব, ফেসবুকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ভিডিয়ো করেন তিনি।রোদ্দুর রায় (Roddur Roy) আর বিতর্ক, এককথায় সমার্থক শব্দ। তাঁর নাম শুনলে অনেকেরই মুখে চোখে বিরক্তি ধরা পড়ে, অনেকেই তাঁর নিন্দামন্দ করেন।কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর জনপ্রিয়তা অস্বীকার করা অসম্ভব। এক অর্থে তিনি সোশ্যাল মিডিয়া সেনসেশন। বারবারই নানা বিতর্কে নাম জড়িয়েছে তাঁর, এর পিছনে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কারণ তাঁর শব্দচয়ন।

রোদ্দুর রায় উচ্চশিক্ষিত, এমনকি বর্তমানে গবেষণায় যুক্ত। তাঁরই সৃষ্ট এক চরিত্র রোদ্দুর রায়।তার ইউটিউবার চ্যানেলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ভিডিও বানান তিনি। আর সেই ভিডিওর ভিউ সংখ্যাও রীতিমতো ঈর্ষণীয়। হাজার হাজার মানুষ দেখেন রোদ্দুর রায়ের ভিডিও। আর সেই ভিডিও থেকেই লক্ষ লক্ষ টাকা কামান এই ইউটিউবার।

আরও পড়ুন :  মৃত করোনা রোগীর ফুসফুস, চামড়ার বলের মতো শক্ত! বিস্মিত চিকিৎসকরা
earn money roddur roy
earn money roddur roy

একমাত্র খিস্তি দিয়েই পকেট ভরছে রোদ্দুর রায়ের। নোংরা, অশ্রাব্য ভাষায় ভরপুর সেই ভিডিয়ো থেকে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ঢুকে যায় রোদ্দুর রায়ের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে। অনেকের মতেই দ্রুত জনপ্রিয়তা আর আয় বাড়াতেই এই পথ বেছে নিয়েছেন রোদ্দুর রায়।একদিকে যেমন জনপ্রিয়তা বাড়ছে, অন্যদিকে তেমন পকেটও বেশ ভরছে।

শুধু বাংলা ভাষাই নয়, ভিডিওর ‘রীচ’ বাড়াতে কথার মাঝে অজস্র ইংরেজি ভাষায় প্রয়োগ করেন রোদ্দুর রায়। অনেকের মতে বাংলা যেহেতু আঞ্চলিক ভাষা সেই কারণে কেবলমাত্র বাংলা ভাষায় ভিডিও তৈরি করলে ভিউ তেমন বেশি হয় না। তাই জাতীয় স্তরের দর্শক টানতেই নাকি ভিডিওতে ইংরাজি ভাষা বলে থাকেন রোদ্দুর রায়। তাঁর মূল লক্ষ্যই হচ্ছে, টাকা রোজগার।

আর নিজেকে এভাবে প্রাসঙ্গিক রেখে দ্রুত জনপ্রিয়তা আর আয় বাড়াতেই গালিগালাজ ও ইংরেজি ভাষার প্রয়োগ করে ভিডিও বানানোর পথ বেছে নিয়েছেন রোদ্দুর রায়।ভিডিও পরিবেশনের সময় নানা অঙ্গিভঙ্গি করেন রোদ্দুর রায়, হাতে থাকে নেশাদ্রব্যও। তবুও তাঁর ভিডিওর ভিউ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে।আপনার কান গরম হত, আর রোদ্দুর রায়ের পকেট।

শুধু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন, দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম থেকে রবীন্দ্রনাথ সহ আরও অনেকেই তার নোংরা গালিগালাজের শিকার হয়েছেন।সম্প্রতি তাকে গোয়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আর সেই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। কিছু মানুষ দাবি জানিয়েছেন রোদ্দুর রায়ের মুক্তি চাই। আর সেই জন্যই কিছু ইউটিউবাররা বৃহস্পতিবার দুপুর বারোটায় ব্যাঙ্কশাল কোর্টের সামনে হাজির হয়েছিলেন।

তবে রোদ্দুর রায়ের ভিডিও প্রসঙ্গে রবীন্দ্র গবেষক পূর্ণেন্দু বিকাশ ভাদুড়ি জানিয়েছেন যে রবীন্দ্রনাথ সারা পৃথিবীর কাছে বাঙালির সম্মান বাড়িয়ে দেয়। সেখানে এই ভিডিও দেখে বিশ্বের লোক কি ভাবছেন? এমনকি লেখক অর্ক দেব জানিয়েছেন যে রাষ্ট্রযন্ত্র দুর্নীতিগ্রস্ত, মৌলিবাদের চেয়ে রোদ্দুর রায় ‘খতরনাক’। তবে, এবার দেখার পালা আগামী দিনে কোনদিকে মোড় নেয় রোদ্দুর রায়ের জীবন।

রোদ্দুর রায়ের জনপ্রিয়তা শুধু বাংলার গণ্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকেনি। তিনি তার কুরুচিপূর্ণ ভিডিওর জন্য সর্বস্তরে ছড়িয়ে পড়েছেন। রোদ্দুর রায়ের ভিডিও পৌঁছে গিয়েছে জাতীয় স্তরেও। লক্ষ লক্ষ মানুষ তার খিস্তির ভিডিও দেখেন, শোনেন। আর এই ভাইরাল ভিডিও থেকে তিনি হাজার হাজার টাকা উপার্জন করেন।

Related Articles

Back to top button