নিউজ

করোনার জোড়া রূপ Hybrid Covid ঢুকে পড়ল ৭ রাজ্যে, এটি নিয়ে চিন্তিত বিজ্ঞানীরা?

করোনার জোড়া রূপ Hybrid Covid ঢুকে পড়ল ৭ রাজ্যে, এটি নিয়ে চিন্তিত বিজ্ঞানীরা

নিউজ ডেস্কঃ করোনা ভাইরাস নিজের রূপ বারবার বদলেছে।এবার করোনার জোড়া রূপ ঢুকে পড়ল ৭ রাজ্যে।একসঙ্গে করোনার দুই রূপ সংক্রমণ ঘটাতে শুরু করেছে।একসঙ্গে ডেল্টা এবং ওমিক্রনে আক্রান্ত হচ্ছেন।এর আগে অন্য দেশে বেশ কয়েক জনের শরীরে এই যুগ্ম সংক্রমণ দেখা গিয়েছিল। কিন্তু এবার ভারতের ৭ রাজ্যে দেখা মিলল Hybrid Covid সংক্রমণ এর।কর্ণাটক ২২১, তামিলনাড়ু ৯০, মহারাষ্ট্র ৬৬, গুজরাট ৩৩, পশ্চিমবঙ্গ ৩২, তেলেঙ্গানা ২৫, নয়াদিল্লি ২০ জন এই Hybrid Covid-এ আক্রান্ত হয়েছেন।

এই জোড়া আক্রমণ কতটা ভয়ের?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা WHO-র প্রধানদেরও Hybrid Covid সংক্রমণ চিন্তায় ফেলেছে।বিজ্ঞানীরা বলছেন ডেল্টা এমনিতেই শরীরকে বেশ কাবু করে দিতে পারে। পাশাপাশি ওমিক্রনের সংক্রমণের হার বেশি এবং ওমিক্রন বেশি সংক্রমণ ঘটায় গলায়।আর ডেল্টা বেশি ক্ষতি করে ফুসফুসের।ফলে এই Hybrid Covid-এ যুগ্ম করোনার আক্রমণে সমস্যা দেখা দিতে পারে।

এই Hybrid Covid কী ?

করোনার দুই রূপ Delta এবং Omicron একসঙ্গে মানুষের দেহে সংক্রমণ ঘটাচ্ছে।এর আগে এই দু’ধরনের রূপ কোনও মানুষের শরীরে একসঙ্গে সংক্রমণ ঘটাতে পারত না। কিন্তু এখন এই ভাইরাস নিজেকে পাল্টে মানুষের শরীরে দু’ধরনের রূপ একসঙ্গে সংক্রমণ ঘটাতে পারছে।

Hybrid Covid-এর উপসর্গগুলি কী কীঃ-

বিশেষজ্ঞরা এখনও এই বিষয় নিয়ে কোনও স্পষ্ট ধারণা দিতে পারছেন না।সংক্রমিতের সংখ্যা বাড়লে, তা বলা যাবে। কিন্তু চিকিৎসকরা কয়েকটি বিষয়ের দিকে নজর রাখতে বলছেন।

* এরফলে প্রচণ্ড তাপমাত্রার জ্বর হতে পারে। বিশেষ করে বুক এবং পিঠের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের তুলনায় অনেকটা বেড়ে যেতে পারে।

* কাশি দীর্ঘ সময় ধরে হতে পারে। এই Hybrid Covid-এর সংক্রমণের কারণে কারও কারও ক্ষেত্রে টানা এক ঘণ্টা ধরেও কাশি হচ্ছে। এমন দীর্ঘ সময়ের কাশি দিনে ২-৩ বার হতে পারে।

* এই Hybrid Covid-এর ক্ষেত্রে স্বাদ-গন্ধের বোধ কমে যাচ্ছে। কিন্তু ওমিক্রনে স্বাদ-গন্ধের বোধ কমে যায়নি। ফলে এদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

Hybrid Covid থেকে বাঁচার উপায় হলঃ-

নিয়মমাফিক টিকা নেওয়ার উপরেই ভরসা রাখতে বলছেন বিজ্ঞানীরা। সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি এবং করোনাবিধি মেনে চলতে হবে। যাঁদের অন্য জটিল অসুখ আছে, তাঁদের এই সময়ে সাবধানে থাকতে হবে।

Related Articles

Back to top button