নিউজ

দুষ্টু ছেলেরা বাড়াবাড়ি করলে জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে, বিস্ফোরক মন্তব্য দিলীপের ! তার প্রচারে কি নিষেধাজ্ঞা? আর্জি কমিশনে

দুষ্টু ছেলেরা বাড়াবাড়ি করলে জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে, বিস্ফোরক মন্তব্য দিলীপের ! তার প্রচারে কি নিষেধাজ্ঞা আর্জি কমিশনে

কোচবিহারের শীতলকুচিতে কেন্দ্রিয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যু হয়েছে চার সাধারণ ভোটারের,যা নিয়ে উত্তাল রাজ্য রাজনীতি।আর এই ঘটনা নিয়ে এবার বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘােষ।রবিবার বড়নগরে দলীয় প্রার্থী পার্নো মিত্রের সমর্থনে জনসভা থেকে দিলীপ হুমকির সুরে বলেছেন,’দুষ্টু ছেলেরা বাড়াবাড়ি করলে জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে’। রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘােষের এই মন্তব্য নিয়েই এবার কমিশনের দারস্থ হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। ইতিমধ্যেই তৃণমূলের তরফে কমিশনে দিলীপ ঘোষের নামে অভিযােগ দায়ের করা হয়েছে।তাতে আর্জি জানানাে হয়েছে, শেষ চার দফায় দিলীপ ঘোষের প্রচারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হােক। একইসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতির বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলার আর্জিও জানানাে হয়।

আরও পড়ুন :  জুতার রিয়্যাক্ট চালু করলো ফেসবুক, কিভাবে জুতার রিয়েক্ট চালু করবেন দেখেনিন

 

ভােটের দিন শীতলকুচিতে ঘটে যাওয়া ওই মর্মান্তিক ঘটনাকে ইতিমধ্যেই ‘গণহত্যা বলে দাবি করেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নিশানা করছেন বিজেপি ও নির্বাচন কমিশনকে।যদিও ওই ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীর উস্কানিকেই দায়ী করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মােদি এবং অমিত শাহ।কিন্তু এবার প্রতিপক্ষকে আক্রমণ শানাতে গিয়ে হুমকির বাধ ভেঙে ফেলেছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।দিলীপ ঘােষের কথায়, কেউ লাল চোখ দেখাতে পারবে না,আমরা আছি। আর যদি বাড়াবাড়ি করে তবে শীতলকুচিতে দেখেছেন কী হয়েছে, জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে। শীতলকুচিতে চারজন নিহতকে তৃণমূল দলীয় কর্মী হিসেবে দাবি করেছে। আর দিলীপের কথায় নিহতরা দুষ্টু ছেলে।

বিজেপির রাজ্য সভাপতির এহেন মন্তব্যে ফের তুমুল বিতর্ক শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মােদির কাছে তৃণমূল সাংসদ তথা যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আর্জির সুরে বলেছেন ন্যূনতম মনুষ্যত্ব থাকলে দিলীপ ঘােষকে বহিষ্কার করুন। আপনি বলছেন খারাপ ঘটনা, আর আপনার দলের রাজ্য সভাপতি বলছেন বেশ হয়েছে, জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে।দিলীপ ঘােষের মধ্যে কোনও মনুষ্যত্ব নেই। মানুষকে মারার নিদান দিচ্ছেন দিলীপ ঘোষ। যদিও বিজেপির তরফে তৃণমূলের এই দাবিকে কোনও গুরুত্বই দেওয়া হচ্ছে না। বিজেপি নেতৃত্বের দাবি, তৃণমূলই প্ররােচনা দিয়ে সাধারণ মানুষকে উস্কাচ্ছেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। আর তাতেই অশান্তির সৃষ্টি হচ্ছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button