ভাইরাল

অবিশ্বাস্য ঘটনা ! প্রেমিকের অন্তরঙ্গ ভিডিও ফাঁস করে কোটিপতি হলেন প্রেমিকা

প্রেমিকের অন্তরঙ্গ ভিডিও ফাঁস

নিউজ ডেস্কঃ বর্তমান সময়টা ভার্চুয়াল, আড্ডা হোক কিংবা জরুরি কাজ। বাস্তবতার পাশপাশি এখন নিত্যনতুন বাস্তবতা হচ্ছে ভার্চুয়াল জগৎ। এ কথা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। রোজ কিছু না কিছু আসে সামনে।কোথাও দেখা যায় কেউ গান করে ভাইরাল হচ্ছে। আবার কেউ নেচে, কেউ আবার এমন আজব কিছু করছেন, যা দেখে চক্ষু চড়কগাছ।অনেকেই প্রেমিক প্রেমিকার সঙ্গে থাকা নানান সময়ের মুহূর্তগুলো ভিডিও কিংবা ছবির মাধ্যমে রাখেন।কিন্তু সেই মুহূর্তের ধারণ করা ভিডিও যদি প্রকাশ্যে চলে আসে তাহলে কেমন হয় বিষয়টি।এমনি এক প্রেমিকা নিজেদের ব্যক্তিগত মুহূর্তের ভিডিও ফাঁস করে হয়ে গেলেন কোটিপতি।

বেশ কিছু বছর আগে কিম কার্দাশিয়ানের খুব বেশি একটা পরিচিতি ছিল না। আইনজীবী রবার্ট কার্দাশিয়ানের মেয়ে হিসেবেই পরিচিত ছিলেন তিনি।পেজ থ্রি’র পাতায় মাঝেমধ্যে তার নাম দেখা যায়।তবে ২০০২ সালে হিলটন হোটেলসের উত্তরাধিকারী পারিস হিলটনের বন্ধু হিসাবেও লোকজন চিনতেন তাকে।আবার হিপ হপ গায়িকা ব্র্যান্ডির স্টাইলিস্ট হিসাবেও চোখে পড়ছেন। শুধু তাই নয় তিনি একধারে মডেল ও অভিনেত্রী।কিন্তু বেশ কয়েক বছরের মধ্যেই পাল্টে যেতে থাকে তার জীবন। বিনোদনের রঙিন দুনিয়ায় যার টুকটাক ছবি দেখা যেত, সেই কিম রাতারাতি তারকা খ্যাতি পেয়ে যান।তার এই খ্যাতির পিছনে একটি ভিডিওর অবদান রয়েছে বলে অনেকেই দাবি করেছিলেন।

আরও পড়ুন :  গোয়ালে নয় গরু শুয়ে আছে এসি লাগানো ঘরে তাও আবার সেগুন কাঠের বিছানায়! দেখে নিন তুমুল ভাইরাল সেই ভিডিও।

গুঞ্জন ওঠে কিম ২০০২ সালের অক্টোবরে ২৩ তম জন্মদিন উদযাপন করতে রে জের সঙ্গে মেক্সিকোর কারো সান লুকাসে ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন।তারা একটি ভিডিও ক্যামেরা সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলেন।ছুটির মজাদার ছবি ছাড়াও তাতে দুজনের বেশ কিছু ঘনিষ্ঠ মুহূর্ত ভিডিও করেন তারা।রে জের সঙ্গে কিমের সেই অন্তরঙ্গ ভিডিও ফাঁস হওয়া মাত্রই সকলের নজরে পড়ে গিয়েছিলেন তিনি।কিন্তু কিম এবং রে-এর একান্ত ব্যক্তিগত মুহূর্ত ঠিক কীভাবে ফাঁস হলো? এই প্রশ্নের উত্তর আজও অধরা রয়ে গেছে।কে সেই ভিডিও ফাঁস করেছিলেন তা নিয়ে নানা ধরনের তর্ক চলেই।

তবে ওই ভিডিওর কারণে কিম কার্দাশিয়ানের জনপ্রিয়তায় এক ফোটা আঁচও লাগেনি।নেটমাধ্যমে ওই ভিডিও এখন পর্যন্ত ১৫ কোটি বারের বেশি দেখা হয়েছে।এই ভিডিও ছাড়াও কিমের আরও বেশ কিছু ভিডিও নেটমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছিল। যেখান থেকে কিম পরবর্তীতে প্রায় ২ কোটি ডলার, অর্থাৎ প্রায় ২০০ কোটি টাকারও বেশি আয় করেন।তবে এর জন্য অনেকের সাথেই বন্ধুত্ব হারাতে হয়েছিল কিমকে। যদিও এর কারনে তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি কিমের জীবনে।

Related Articles

Back to top button