ভাইরালনিউজ

ঠিক যেন সিনেমা, ৭ বছরের বিবাহিত স্ত্রীকে প্রেমিকের হাতে তুলে দিলেন স্বয়ং স্বামী

ঠিক যেন সিনেমা, ৭ বছরের বিবাহিত স্ত্রীকে প্রেমিকের হাতে তুলে দিলেন স্বয়ং স্বামী

সত্যি এ যেন কোন সিনেমার দৃশ্য। এমন ভূমিকা বাস্তবের জীবনে দেখা যায় না।কারন কোনও স্বামী স্ত্রীকে তাঁর প্রেমিকের সঙ্গে চলে যেতে দিতে পারেন না।বাস্তবে যেন ‘হম দিল দে চুকে সনম’ সিনেমারই ঝলক দেখা দিল কিছুটা হলেও।বাস্তবেও এমন এক ঘটনার সাক্ষী থাকল বিহারের ভাগলপুর জেলার সুলতানগঞ্জ শহরে।যেখানে একজন ব্যক্তি তাঁর সাত বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টেনে স্ত্রীকে প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে দিলেন।বিহারের খাগরিয়া জেলার বাসিন্দা স্বপ্না কুমারী ২০১৪ সালে সুলতানগঞ্জের উত্তম মণ্ডলের সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়েন। তাঁদের দুই সন্তানও রয়েছে। সুখে-শান্তিতেই চলছিল তাদের সংসার।

আরও পড়ুন :  মানুষ নয় বরং গরু-ঘােড়ার সঙ্গে সেক্স করে অদ্ভুত নজির গড়লেন নিউজিল্যান্ডের এক ব্যক্তি

কিন্তু মনকে তো আর বেঁধে রাখা যায় না। ভালোবাসার কাছে কবে কোন যুক্তি কাজ করেছে।একদিন স্বপ্নার সঙ্গে উত্তমের এক আত্মীয় ওই গ্রামেরই অল্প বয়সী রাজু কুমারের দেখা হয়। এরপর তারা দুজনে দুজনের প্রেমে পড়েন। এত দিনের বিবাহিত স্ত্রীর সম্পর্কে একথা শোনার পর উত্তম হতবাক হন এবং দুমড়ে-মুষড়ে যান।এই নিয়ে দুজনের মধ্যে অশান্তিও শুরু হয়। স্বপ্নাকে উত্তমের বাড়ির লোকেরাও বোঝানোর চেষ্টা করেন। অবশ্য তাতে কোন কাজ হয়নি।অবশেষে সেই ভাঙনের যন্ত্রণা সামলে ওঠে উত্তম মণ্ডল ঠিক করেন স্ত্রীকে তাঁর প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে দেবেন।

আরও পড়ুন :  দীর্ঘদিন ধরে একাধিক প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে ৯ বছরের শিশুকে যৌন নিগ্রহের অভিযোগ গ্রেফতার সিভিক ভলান্টিয়ার

 

কারন উত্তম ভাবতে শুরু করেন মিথ্যে সম্পর্ক টিকিয়ে রেখে কোনও লাভ নেই।যদিও আত্মীয় স্বজনরা তাঁদের বিয়ে বাঁচানোর জন্য তাঁকে অনেক বুঝিয়েছেন। কিন্তু উত্তম তাঁর সিন্ধান্তে আগা গোড়াই অনড় থেকেছেন।পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে উত্তম নিকটবর্তী একটি দুর্গা মন্দিরে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে স্বপ্না এবং রাজুর বিয়ে দেন।তাঁদের সুখী জীবনের জন্য তিনি তাঁদের দুহাত তুলে আশীর্বাদও দেন।তবে বিয়ের মূহুর্তে নিজেকে সামলাতে না পেরে অঝোরে কেঁদে ফেলেন উত্তম।তবুও তিনি তার সিন্ধান্তে অবিচল থাকেন। কারণ ভালোবাসায় শুধু ত্যাগ আছে, আছে দহনের যন্ত্রণা।ভালোবাসার স্বার্থকতা তো এখানেই।

Related Articles

Back to top button