Monkey Viral News: অবাক কান্ড!শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিয়মিত ক্লাস করেন এক বানর

Monkey Viral News: অনেকেই বাড়িয়ে শখ করে নানা ধরনের পোষা পোষেন। অনেকে মনে করেন বাড়িতে পশু-পাখিদের রেখে তাদের সেবা-যত্ন করা, তাদের খাওয়ানো খুবই পুণ্যের কাজ। এই পশু-পাখি মানুষকে নিঃশর্ত ভালোবাসা দেয়। অধিকাংশ মানুষ কুকুর পুষতে ভালোবাসেন, তাই অনেক আদর যত্নে নিজের বাড়িতে কুকুর রাখেন। আবার কেউ কেউ বেড়াল পুষতে ভালবাসেন।

তেমনই আবার অনেকে পোষ্য হিসেবে বানর পুষেন। তবে খুব কম বাড়িতেই বানর পুষতে দেখা যায়। আমরা সাধারণত বনে বা চিড়িয়াখানায় বানর দেখতে পাই। আবার হয়ত হঠাৎ কোন সময় আমাদের বাড়ির আশেপাশেও বানর দেখতে পাই। কিন্তু কোন বানরকে নিয়মিত স্কুলে গিয়ে ক্লাস করত দেখেছেন কি? শুনেই অবাক লাগছে তাই না। অবাক লাগলেও এটা বাস্তবে সত্যি।

Advertisement

এমন ঘটনা ঘটছে ঝাড়খণ্ডের হাজারিবাগ জেলার দানাউ গ্রামে। এখানেই একটি সরকারি স্কুল রয়েছে। সেই স্কুলেই সপ্তাহ খানেক আগে একটি বানর এসে হাজির হয়। নবম শ্রেণির ক্লাস চলাকালীন বানরটি ক্লাসে ঢুকে পড়ে। স্বাভাবিকভাবেই বানর দেখে ছাত্ররা হইচই জুড়ে দেয়। ভয়ে সেখান থেকে সরে যায়। ক্লাস ওঠে লাটে। কিন্তু বানরটি কারও কোনও ক্ষতি না করে শান্তভাবে এসে প্রথম বেঞ্চে বসে পড়ে।

ফাঁকা বেঞ্চটিতে অবশ্য সে একাই বসে। বাকিরা অন্য বেঞ্চে বসে। এরপর ক্লাস শুরু হলে অন্য পড়ুয়াদের সঙ্গে সেও মন দিয়ে ক্লাস করতে থাকে। এরপর থেকে প্রতিদিনই সে স্কুল শুরুর সময় ক্লাসে ঢুকে পড়ে। পড়ায় তার খুব মন। স্কুলে গিয়ে সব সময় ফার্স্ট বেঞ্চে বসবে। সামনের সারির একটি বেঞ্চ তার চাই। ক্লাস চলাকালীন মাস্টারমশাই কি পড়াচ্ছেন তা মন দিয়ে শোনেন। কোনও ক্লাসে কোনও বেয়াদবি সে করেছে এমন কোনও অভিযোগ মাস্টারমশাইরা করতে পারেননি।

এত বাধ্য পড়ুয়া স্কুলের মাস্টারমশাইরা আগে খুব কমই পেয়েছেন। এখনকার ছাত্রছাত্রীরা এমন বাধ্য হয়না। অনেক পড়ুয়া মাঝে মধ্যেই নানা কারনে হয়ত স্কুলে যায় না।কিন্তু রোদ, জল, বৃষ্টি যাই হোক, স্কুলের ঘণ্টা পড়লে অন্য পড়ুয়াদের আগে এসে এই বানর ক্লাসে ঢোকে। ছুটির ঘণ্টা পড়লে তবে সব ক্লাস করে বার হয়। এর মাঝে কোনও ফাঁকি নেই। তবে টিফিন টাইমে মাঝে মাঝে হেড স্যারের টেবিলে গিয়ে বসে থাকে এই যা।

হ্যা টিফিনের সময় মাঝে মধ্যে প্রধান শিক্ষকের টেবিলে গিয়ে বসে থাকে। কিন্তু টিফিনের পর ক্লাস শুরু হলে আর দেরি না করে সে ক্লাসে চলে যায়। স্কুলের তরফ থেকে বন দফতরে খবর দেওয়া হয়েছিল। বন কর্মীরা এসে বানরটিকে ধরারও চেষ্টা করেন। কিন্তু তার নাগাল পাওয়া যায়নি। এমন বাধ্য পড়ুয়া বানর নিয়ে স্কুলে এখন আর কোনও সমস্যা নেই।

সংবাদ সূত্র জুম বাংলা

Advertisement

Related Articles