নিউজ

জানুন বাংলায় লকডাউনের খবর নিয়ে, কি বলছে নবান্ন

বাংলায় লকডাউনের খবর ভুয়াে, আর এই ধরনের ভুয়ো খবরে বিভ্রান্ত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে নবান্ন

করােনা ভাইরাসের সংক্রমণ বাংলায় নতুন করে ছড়াচ্ছে।আর এই সংক্রমণ বাড়ায় অনেকে সােশ্যাল মিডিয়ায়
ছড়াচ্ছে কলকাতায় বা গোটা রাজ্যে আবার লকডাউন হবে। কিন্তু নবান্ন জানাল এই খবর ভুয়াে,নবান্নের শীর্ষ সূত্রে সােমবার বলা হয়েছে, এমন কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকও এমন কোন পরামর্শ এখনও পর্যন্ত দেয়নি। এই ধরনের ভুয়ো খবরে কেউ যেন বিভ্রান্ত না হন তারই পরামর্শ দেওয়া হয়েছে নবান্ন থেকে।এই লকডাউনের ভুয়াে খবর ছড়াতেই অনেকে উৎকণ্ঠায় পড়েছেন।বিভিন্ন স্কুলে ক্লাস শুরু হয়েছে নবম শ্রেণির, তাছাড়া ৫ মে রয়েছে সিবিএসই বাের্ডের পরীক্ষা।এই লকডাউনের খবর শুনে তা অনিশ্চিত হয়ে যাবে কিনা তা নিয়েও অনেকে ধন্দে পড়ে গেছেন।গত বছর ২২ মার্চ দেশজুড়ে জনতা কার্ফু হয়েছিল। তার পর থেকে দীর্ঘ দিন ঘরবন্দি থাকার স্মৃতি ম্লান হয়নি এখনও।

আরও পড়ুন :  বন্যা কবলিত মানুষদের পাশে দাঁড়িলো তপনের তৃণমুল কংগ্রেসের কর্মী ও সদস্যরা

নবান্নের শীর্ষ এক আমলা সােমবার বলেন,যারা লকডাউনের ভুয়াে খবর ছড়াচ্ছে তারা দায়িত্ব জ্ঞানহীনের মতো কাজ করছে।আর এই লকডাউন যাতে না করতে হয় সে জন্যও মানুষকে দায়িত্বশীল হতে হবে।কোভিডের টিকাকরণ প্রক্রিয়া চলছে। গােটা জনসংখ্যার হিসাবে এখনও পর্যন্ত খুব কম সংখ্যক মানুষকেই টিকা দেওয়া সম্ভব হয়েছে।ফলে সংক্রমণ রুখতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, হাত পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে এবং মাস্ক পরতে হবে সকলকে।কিন্তু অনেকেই এই সব নিয়ম মানছে না, আর সেই কারণেই নতুন করে বাড়ছে কোভিডের সংক্রমণ।

আরও পড়ুন :  SSC Chairman Resigns : SSC নিয়োগ বিতর্কের মধ্যেই আচমকা ইস্তফা SSC চেয়ারম্যানের

 

এ বছরের মধ্যে রবিবারই নতুন করে কোভিডে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল সর্বাধিক,আক্রান্ত হয়েছেন ৪২২ জন। চলতি বছরের গত আড়াই মাসের মধ্যে এটাই রেকর্ড একুশ সালে এত বেশি আর হয়নি।এর মধ্যে কলকাতাতেই আক্রান্ত হয়েছেন ১৫৮ জন ও উত্তর ২৪ পরগনায় ৯৮ জন।এছাড়া ঝাড়গ্রাম, কালিম্পং বাদ দিলে মােটামুটি সব জেলাতেই করােনার রেখচিত্র উর্ধ্বমুখী।গত চব্বিশ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে তিনজনের, বাংলায় এ পর্যন্ত কোভিডে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ১০,৩০৬-এ।কলকাতার কিছু কিছু ওয়ার্ডে
প্রায় প্রতিদিনই নতুন আক্রান্তের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে।তাই বিভ্রান্ত না ছড়িয়ে সতর্ক হওয়ারই পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button