নিউজ

কেন্দ্র সাফ জানিয়ে দিল দেশের সব মানুষকে টিকা দেওয়ার কোনও পরিকল্পনাই নেই

কেন্দ্র সাফ জানিয়ে দিল দেশের সব মানুষকে টিকা দেওয়ার কোনও পরিকল্পনাই নেই

গত ১৫ জানুয়ারি থেকে দেশ জুড়ে টিকাকরণ শুরু করেছে নরেন্দ্র মােদী সরকার। প্রথম ধাপে তিরিশ কোটি ভারতীয়কে টিকাকরণের আওতায় নিয়ে আসার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।এনসিপি সাংসদ সুপ্রিয়া সুলে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের কাছে জানতে চেয়েছিলেন পরবর্তী পর্যায়ে কি দেশের প্রত্যেককে প্রতিষেধকের আওতায় নিয়ে আসা হবে। সেই প্রশ্নের জবাবে হর্ষবর্ধন লােকসভায় বলেন করোনার মতাে ভাইরাসের যা চরিত্র, তাতে দেশের প্রত্যেক মানুষকে প্রতিষেধক দেওয়ার প্রয়ােজন নেই।স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, দেশের ৬০-৭০ শতাংশ মানুষের শরীরে করােনার বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি হলেই ওই ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া আটকে দেওয়া সম্ভব।

 

বর্তমানে এদেশে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিয়ম মেনে স্বাস্থ্যকর্মী, ফ্রন্টলাইন ওয়ার্কার, প্রবীণ নাগরিক এবং ক্রনিক রােগে আক্রান্ত ৪৫-৫৯ বছর বয়সিদের প্রতিষেধক দেওয়া হচ্ছে।পরবর্তী সময়ে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ মেনে আরও কম বয়সিদের প্রতিষেধকের আওতায় নিয়ে আসা হবে।কিন্তু তা বলে দেশের সব মানুষকে ওই প্রতিষেধক দেওয়ার কোনও লক্ষ্য সরকারের নেই।স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে সাধারণত দু’ভাবে শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হতে পারে। প্রথমত, করােনায় আক্রান্তেরা সুস্থ হয়ে ওঠার কিছু সপ্তাহ পরে তাঁদের শরীরে স্বাভাবিক নিয়মে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়। দ্বিতীয়ত, প্রতিষেধকের মাধ্যমে শরীরে অ্যান্টিবড়ি তৈরি করা হয়ে থাকে।

 

প্রথম ধাপে ৩০ কোটি ভারতীয় নাগরিককে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের।পরবর্তী ধাপে আরও কুড়ি থেকে তিরিশ কোটি মানুষকে টিকাকরণের আওতায় নিয়ে আসার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।তবে আগামী দিনে কমবয়সিদের প্রতিষেধক দেওয়া হলেও ১৪ বছরের নীচে যাদের বয়স, তাদের টিকাকরণের কথা এখনই ভাবছে না কেন্দ্র।হর্ষবর্ধন জানান অন্যদের তুলনায় ০-১৪ বছর বয়সিরা করােনায় অনেক কম আক্রান্ত হয়েছে।একেবারে ছােটদের সংক্রমণের খবর মিললেও অধিকাংশের শরীরে ওই ভাইরাসের উপসর্গ দেখা যায়নি বললেই চলে।তাই ছােটদের জন্য এখনই আলাদা করে পরিকল্পনা করেনি সরকার।তবে এমসের শিশুরােগ বিভাগ গবেষণা করে দেখছে দীর্ঘমেয়াদি ভিত্তিতে করােনা সংক্রমণের প্রভাব ছােটদের উপরে পড়ছে কিনা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button