ভাইরালভিডিও

সুন্দরী নাতনির সঙ্গে বন্ধ ঘরে অশ্লীল নাচ করলেন বৃদ্ধ দাদু, রইল ভাইরাল ভিডিও

সোশ্যাল মিডিয়া এখন বিনোদনের অঙ্গ হয়ে উঠেছে।বিভিন্ন মুহূর্ত ক্যামেরাবন্দী করে এক নিমেষে মানুষ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে দিচ্ছে। যা দেখতে পাচ্ছে লক্ষ লক্ষ মানুষ। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় এরকম এক দাদু নাতনির ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যেখানে তাদের দুজনকে যুগলবন্দী পারফর্মম্যান্স করতে দেখা যাচ্ছে। তবে এই ভিডিওটি দেখে অনেকের দৃষ্টি কটু বলে মনে হয়েছে।

আসলে ভিডিওটিতে যে গানের সাথে দাদু নাতনিকে নাচতে দেখা গেছে তা এই স্নেহের সম্পর্কের সাথে একদম বেমানান।তার ওপর নাতনিটিকে বেশ গায়ে গা লাগিয়ে ঘনিষ্ঠ ভাবে নাচ করতে দেখা যাচ্ছে। যার ফলে এই ভিডিওটি প্রকাশ্যে আসতেই সমালোচনা শুরু হয়েছে। অনেকের কাছে অশ্লীল বলে মনে হয়েছে ভিডিওটি।দাদু ঠাকুমার সাথে আমাদের স্নেহের সম্পর্ক তাই দাদুর সাথে এই ধরনের নাচ একদম পছন্দ করেননি নেটিজেনরা।

আরও পড়ুন :  পুলিশে পোষাকে উর্দিধারী দুজন মহিলার হিন্দি গানের নাচ, ভাইরাল স‍্যোসাল মিডিয়ায়

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ভিডিওটিতে একটি টালির বাড়িতে এক বয়স্ক ভদ্রলোককে একটি মেয়ের সাথে ভোজপুরি গানে নাচতে দেখা গিয়েছে।ভোজপুরি গানের জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে। অনেকেই এখন ভোজপুরি গানকে বেশ পছন্দ করেছেন। তবে এই গানে দাদুর সাথে নাতনির নাচ একেবারেই বেমানান। ইতিবাচক মন্তব্যের থেকে ভিডিওটি ট্রোলের মুখে পড়েছে বেশি।

ভিডিওটির কমেন্ট বক্স দেখলেই বোঝা যাচ্ছে নেট নাগরিকদের এই ভিডিওটি ভালো লাগেনি। অনেকে নানা কটূক্তিও করেছেন।নাচের মধ্যে অশ্লীলতা চোখে পড়েছে নেটিজেনদের। এই কারণে দাদু -নাতনির এই ভিডিওটি নেটিজেনদের তুমুল কটাক্ষের স্বীকার হয়েছে। তাঁদের মতে দাদু দিদা কিংবা দাদু-ঠাকুমার সাথে তাদের নাতি কিংবা নাতনিদের এক মধুর সম্পর্ক থাকে।দাদু ঠাকুমা আমাদের আবদারের জায়গা, খুনসুটির জায়গা।যতই বড়ো হই না কেন দাদু ঠাকুমার কাছে আমরা সেই ছোট্টটি থাকি।

তাদের সঙ্গ পেলে আমরাও যেন সেই ছোটবেলার দিন ফিরে পাই।বয়স যত বাড়তে থাকে নাতি নাতনিদের সাথে সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ হয় তাদের।কিন্তু এই ভিডিওটিতে যে রকম নাচ এই দুজনের মধ্যে দেখা গিয়েছে তা দাদু-নাতনির মধুর সম্পর্ককে কলংকিত করেছে বলে তারা মনে করছেন।কিন্তু অনেকেই আবার বৃদ্ধের প্রশংসা করেছেন এই বৃদ্ধ বয়সেও ভোজপুরি গানে নাচ করার সাহস দেখিয়েছেন বলে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন অনেক ছোট ছোট ঘটনাও ভাইরাল হয়ে যাচ্ছে। আর এর দৌলতে অনেকেই মানুষের মধ্যে পরিচিতি পাচ্ছেন। তবে এর একটি নেগেটিভ দিকও আছে। সবার সামনে পরিচিতি পাওয়ার জন্য অনেকে এমন কাজ করেন যার ফলে নেগেটিভ পাবলিসিটির স্বীকার হতে হয়।তবে এই ভিডিওটিও সেই দলে পড়ে কিনা সেটাই বিচার্য বিষয়।সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ভিডিওটি নিছক মনোরঞ্জনের স্বার্থে আপলোড করা হয়েছে কিনা সেটাই দেখার বিষয়।

Related Articles

Back to top button