Uncategorized

খাওয়ার সময় হঠাৎ কারো দম বন্ধ হয়ে গেলে যা করবেন

খাওয়ার সময় দম বন্ধ হওয়ার মতো ঘটনার সম্মুখীন অনেকেই হয়েছেন।এটি সাধারণত তখনই হয় যখন বাতাসের উত্তরন হঠাৎ করেই আংশিক বা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে গিয়ে শ্বাস নিতে কষ্ট হয়।এই ধরনের পরিস্থিতি হলে মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবরাহ সীমাবদ্ধ হয়ে যেতে পারে।এই ধরনের পরিস্থিতি হলে খুব দ্রুত ব‍্যবস্থা নেওয়া উচিৎ।

What to do if someone suddenly stops breathing while eating

ইতিমধ্যে এমন অভিজ্ঞতার সম্মুখীন অনেকেই হয়েছেন। কখনো দেখা গিয়েছে বিয়েবাড়িতে খেতে বসে সবাই মিলে গল্প করতে করতে হঠাৎই খাবার গলায় আটকে দম বন্ধ হওয়ার জোগাড় আবার কখনও দেখা গিয়েছে হঠাৎই বোতল থেকে জল পান করতে গিয়ে হেঁচকি উঠে কাশতে কাশতে দমবন্ধ হওয়ার অবস্থা।এমন পরিস্থিতিকে কখনও সামান্য ভাবে দেখা উচিৎ নয় সামান্য অবহেলাতেই অনেক সময় ঘটে যেতে পারে অনেক বড় বিপদ।এমন অবস্থায় আপনি সাহায্য করতে চাইলেও হয়তো যতটা জানেন ততটাই যথেষ্ট নয়।আসুন জেনে নেওয়া যাক কি করবেন এমন অবস্থায়।

আরও পড়ুন :  আগামী ২৪ ঘন্টায় বজ্রবিদ্যুত্‍ সহ ভারী বৃষ্টি হতে পারে কয়েকটি রাজ্যে

What to do if someone suddenly stops breathing while eating

দম বন্ধ হওয়ার লক্ষণ:
শ্বাসরোধের একটি সাধারণ লক্ষণ ভারী কাঁশি।তবে যদি উইন্ড পাইপটিতে বাধার কারনে শ্বাসরোধ হয় তা বোঝার জন্য অন‍্য কয়েকটি কারন আছে যা নিচে তুলে ধরা হলো।
১/শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যা।
২/কথা বলতে অসুবিধা।
৩/শ্বাস নেওয়ার চেষ্টা করার সময় অদ্ভুত শব্দ।
৪/জোর করে কাঁশি।
৫/ত্বক,ঠোঁট, নখ নীল হয়ে যাওয়া।
৬/চেতনা হ্রাস পাওয়া।

এই সময় আপনার প্রতিক্রিয়া নির্ভর করবে আক্রান্ত ব‍্যাক্তির অবস্থার উপর।অসুস্থ ব‍্যাক্তি যদি ঠিকমতো কথা বলতে না পারে বা কিছু করতে না পারে তবে পরামর্শ দেওয়া হয় ‘ফাইভ অ্যান্ড ফাইভ’পদ্ধতিটি অনুসরণ করতে।চলুন দেখে নেই কি সেই পদ্ধতি।

ফাইভ অ্যান্ড ফাইভ পদ্ধতি:
কারো দম বন্ধ হলে আমেরিকান রেড ক্রস ফাইভ অ্যান্ড ফাইভ পদ্ধতি অনুসরন করতে পরামর্শ দেয়।

পেটে আঘাত করার পদ্ধতি:
প্রথমত:
আক্রান্ত ব‍্যাক্তির পেছনে দাড়িয়ে দুহাত দিয়ে তার কোমর ধরুন।

দ্বিতীয়ত:
আক্রান্ত ব‍্যাক্তিকে সামান্যভাবে সামনের দিকে ঝুঁকিয়ে একহাত দিয়ে মুষ্টি তৈরী করে তার নাভির উপর রাখুন ও অন‍্য হাত দিয়ে সেই মুষ্টি ধরুন।

তৃতীয়ত:
জোর দিয়ে আক্রান্ত ব‍্যাক্তির পেটে এমনভাবে চাপ দিন যেন মনে হয় আপনি তাকে উপরে তোলার চেষ্টা করছেন।

পেছনে আঘাত করার পদ্ধতি:

প্রথমত:
আক্রান্ত ব‍্যাক্তির পাশে দাড়ান এবং তার বুকজুড়ে আপনার একটি বাহু রাখুন।

দ্বিতীয়ত:
সামান্যভাবে আক্রান্ত ব‍্যাক্তির কোমরটিকে এমনভাবে বাঁকাবেন যাতে কোমরের উপরের অংশ মাটির সাথে সমান্তরাল হয়।

তৃতীয়ত:
আপনার অন্য হাত দিয়ে তার কাধেঁ পাঁচবার আঘাত করুন।

সবশেষে যদি এসব কিছুতেই কিছু না হয় তবে তবে অ্যাম্বুলেন্স ডেকে হসপিটালে নিন।আর যদি আক্রান্ত ব‍্যাক্তি অজ্ঞান হয়ে যান তবে সিপিআর করুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button