নিউজ

বিশ্বরেকর্ড! চিনকে ছাপিয়ে গেল ভারত, ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি ভারতে জন্মেছে প্রায় ৬০ হাজার শিশু

নিউজ ডেস্কঃ ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি ভারতে জন্ম নিয়েছে প্রায় ৬০,০০০ শিশু, যা বিশ্বরেকর্ড।ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের প্রথম দিনে বিশ্বে মোট ৩,৭১,৫০৪টি শিশুর জন্ম হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৬০ হাজার শিশুই জন্মেছে ভারতে। তাতেই এক দিনে জনসংখ্যা বৃদ্ধিতে’ প্রথম স্থান দখল করল ভারত। চিনও পিছিয়ে, বেশ অনেকটাই। ১ জানুয়ারি, ২০২১ তারিখে চিনে জন্মগ্রহণ করেছে ৩৫,৬১৫টি শিশু।প্রতি বছরই নববর্ষের দিন যারা জন্মায়, তাদের জন্মদিনটাকে উদযাপন করে থাকে ইউনিসেফ।সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, ২০২১ সালে বিশ্বব্যাপী মোট ১৪ কোটি শিশুর জন্মগ্রহণের কথা।নতুন বছরে প্রথম দিনে প্রথম শিশুটি সম্ভবত জন্মগ্রহণ করেছে প্রশান্ত মহাসাগরীয় দেশ ফিজিতেই আর দিনের শেষ শিশুটির জন্ম আমেরিকায়।বিশ্বের অর্ধেক শিশুর জন্ম হয়েছে আটটি দেশে ভারত,চিন, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া, আমেরিকা,কঙ্গো এবং ইথিয়ােপিয়া।

আরও পড়ুন :  নেপালের নাইট ক্লাবে রাহুল গান্ধী, ভিডিও শেয়ার করে কটাক্ষ BJP-র, তৃণমূলের আবার পালটা গর্জন

World record! India overtakes China, about 60,000 children were born in India on January 1, 2021

ভারতে ইউনিসেফ-এর মুখ্য প্রতিনিধি চিকিৎসক ইয়াসমিন আলি হক জানিয়েছেন, ‘মহামারীর আগাম আভাস পাওয়া এবং তার মােকাবিলা করা শিশুদের জীবনরক্ষার জন্য খুবই গুরুত্বপুর্ণ। এই পদক্ষেপ করার সময় মাথায় রাখা জরুরি যে, সংকটকাল কেটে গেলে আমরা যেন আরও ভালাে এক বিশ্ব গড়তে পারি।যে সমস্ত শিশু ১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে জন্মগ্রহণ করেছে, তারা মাত্র এক বছর আগের চেয়ে অনেকাংশে পরিবর্তিত পৃথিবীর নাগরিক হতে চলেছে।প্রতি বার ক্যালেন্ডারের পাতায় জানুয়ারি এলে আমাদের মনে করিয়ে দেয়, নতুন সম্ভাবনার কথা। একটা সুযােগ পেলে একটি শিশুপুত্র বা একটি শিশুকন্যার অনেক কিছু করে দেখাতে পারে।২০১৮ সালে জন্ম নেওয়া অন্তত ২৫ লক্ষ শিশু এক মাসের মধ্যে মারা গিয়েছিল। এদের মধ্যে বেশির ভাগই মারা গিয়েছে অপরিণত অবস্থায় জন্মানাের জন্য, কেউ কেউ জন্ম নিতে গিয়েই, অনেকের আবার সংক্রমণ হয়েছিল।তবে ইউনিসেফ অবশ্য জানিয়েছে, গত তিন দশকে, সদ্যোজাত শিশু মৃত্যুর হার অনেকটাই কমেছে।

আরও পড়ুন :  যিনি কাচ থেকে তৈরি করেছিলেন বালি সেই ভারতীয় তরুণকেই বাছল রাষ্ট্র সংঘ

এই মুহূর্তে জনসংখ্যার নিরিখে চিন প্রথম, ১৪৩ কোটি। তার পরেই দ্বিতীয় স্থানে ভারত, ১৩৭ কোটি। বিশ্বের মােট জনসংখ্যার ১৯ শতাংশের বাস চিনে এবং ১৮ শতাংশের বাস ভারতে। প্রথম-দ্বিতীয়ের এই ছবি দীর্ঘদিনের। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন এই শতকের শেষে গিয়ে হিসেব উল্টে যাবে। ভারতই জনসংখ্যার নিরিখে প্রথম হবে,অন্তত ১৫০ কোটি জনসংখ্যা দাড়াবে ভারতের।চিন থাকবে দ্বিতীয় স্থানে, ১১০ কোটির কিছু কম।অতিমারী আমাদের শিখিয়েছে যে, শুধুমাত্র সংকটের সময় নয়, মানুষের নিরাপত্তার খাতিরে দীর্ঘমেয়াদী ব্যবস্থা ও নীতি নির্ধারণ করা জরুরি। বিশ্বের সমস্ত সরকার, বেসরকারী সংস্থা, দাতা ও অংশীদারদের উদ্দেশ্যে ইউনিসেফ-এর আবেদন, আসুন আমরা এক উন্নত ও নিরাপদ বিশ্ব গড়ে তােলার কাজে হাত মেলাই।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button