Covid-19 এর তৃতীয় ঢেউ এবার ভারতে,ফের কি লকডাউন দেশে ?

Covid-19 এর নয়া ভ্যারিয়েন্ট ইতোমধ্যেই চোখ রাঙাতে শুরু!

“আবার আসিব ফিরে, এই ধানসিঁড়িটির তীরে” ঠিক যেন এইভাবেই Covid-19 বারে-বারে ফিরে আসছে মানুষের জীবনে। ইতোমধ্যেই Covid-19 র Third Wave বা তৃতীয় ঢেউ পুনরায় ভারতে প্রবেশ করে গিয়েছে। রোগটির ভয়াবহতা সম্পর্কে আমরা প্রায় প্রত্যেকেই কম-বেশি ওয়াকিবহাল।

তাই এই তৃতীয় ঢেউ আটকানোর জন্য কেন্দ্রীয় সরকার কোভিড টেস্ট ও ট্র্যাকের মতো কড়া ব্যবস্থা গ্ৰহণ করতে চলেছে। ভারতের পাশাপাশি আমেরিকা,জাপান ও চিন-এর কোভিড পরিস্থিতির ওপরও তাঁর ধীর দৃষ্টি। চলতি বছরের মার্চ মাস থেকেই দেশে কোভিড সংক্রমণ কমতে শুরু করেছিল।

Advertisement

করোনার নয়া ভ্যারিয়েন্ট BF-7 নিয়ে রাজ্যকে সতর্ক কেন্দ্রের।

পৃথিবী হয়ে উঠেছিল মাস্ক ও স্যানিটাইজার মুক্ত। কিন্তু,এ কি? সেই মাস্ক-স্যানিটাইজার পুনরায় চোখ রাঙাতে শুরু করে দিয়েছে। দোকানে-দোকানে আবার সেই মাস্ক আর স্যানিটাইজার কেনার ধুম পড়েছে। Covid-19 বললেই যে কথাটি সবার আগে মনে পড়ে যায় সেটি হল লকডাউন।

তাহলে কি দেশে আবার লকডাউন-এর সম্ভাবনা রয়েছে?এই সম্পর্কে ভারতের শীর্ষস্থানীয় চিকিৎসক সংগঠন I MA( Indian Medical Association)-র সদস্য ডাক্তার অনিল গোয়েল বলেছেন,”লকডাউনের কোনো সম্ভাবনা এই মুহূর্তে নেই। “তবে কোভিডের নতুন ভ্যারিয়েন্ট সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করার প্রচেষ্টা ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে।

এইরূপ সংকটময় মুহূর্তে পুনরায় জনসাধারণকে মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করার পরামর্শ দিচ্ছে IMA.পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য এই মুহূর্তে কোনোপ্রকার জনসমাগম যেমন- বিয়েবাড়ি, রাজনৈতিক জনসভা, আন্তর্জাতিক ভ্রমণ এড়িয়ে যাওয়ার সতর্ক বার্তা দেওয়া হচ্ছে I MA-র তরফ থেকে। যারা এখনও পর্যন্ত বুস্টার ডোজ্ নেননি, তাঁদের অবিলম্বে টিকা নিতে বলা হচ্ছে।

এছাড়া,জ্বর-সর্দি-কাশি-গলা ব্যথা-বুকে ব্যথা-শ্বাসকষ্ট-পেট খারাপের মতো কোনোপ্রকার উপসর্গ দেখা দিলেই দ্রুত ডাক্তার দেখানোর ব্যবস্থা করতে হবে ও যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। তবে এই Covid-র এই তৃতীয় ঢেউ আটকানোর জন্য কেন্দ্রীয় সরকার বেশ তৎপর। ২২শে ডিসেম্বর,বৃহস্পতিবার বিকেলে,এই উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক,অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রক ও আধিকারিকদের সাথে কেন্দ্র সরকারের বিশেষ বৈঠকও আয়োজিত হয়েছিল।

ঐন্দ্রিলা শর্মা,পরপর ১০ বার হার্ট অ্যাটাক, ঐন্দ্রিলা-র মৃত্যুর পর অতিক্রান্ত ১ মাস, কেমন আছেন সব্যসাচী?

এই বৈঠকে কেন্দ্রীয় সরকার মূলত অক্সিজেন সিলিন্ডার, হাসপাতাল কর্মী ও ভেন্টিলেশন ব্যবস্থার ওপর জোর দেন।এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য দপ্তরের আধিকারিকরা তাঁর সাথে পুরোপুরি কো-অপারেট করেন, বিভিন্ন হাসপাতালগুলিতে পর্যাপ্ত পরিমাণ শয্যা ও অন্যান্য জরুরি ব্যবস্থার পরিকাঠামো এখন থেকেই প্রস্তুত রাখা হচ্ছে।

গতকাল এই উদ্দেশ্যে লোকসভা ও রাজ্যসভা-র মধ্যে সংসদকক্ষে একটি অধিবেশনের আয়োজন করা হয়েছিল।সেখানে উপস্থিত ছিলেন উভয় কক্ষের স্পিকাররা। লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা Covid পরিস্থিতি নিয়ে যথেষ্ট সচেতন ছিলেন। মাস্ক ছাড়া তিনি সংসদকক্ষে কারোর প্রবেশ নিষিদ্ধ করেন।
এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবরের আপডেট সবার আগে পেতে হলে এই ওয়েবপোর্টালটি ফলো করতে ভুলবেন না।
Written by Arpita Sen.

সকালের বার্তার নিউজ সবার আগে পেতে Follow করুন সকালের বার্তার গুগল নিউজ, সকালের বার্তা ফেসবুক পেজ, সকালের বার্তা টেলিগ্রাম গ্রুপ ও WhatsApp Group.

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *