নতুন বছরের শুরুতেই কি মিলতে চলেছে এবার বকেয়া মহার্ঘ্য ভাতা (Dearness Allowance), কৌতুহলী সরকারি কর্মচারী।

বকেয়া মহার্ঘ্য ভাতা (Dearness Allowance) নতুন আপডেট।

আগামী বছরের জানুয়ারি থেকেই পাওয়া যেতে পারে পশ্চিমবঙ্গের অন্তর্গত সরকারি কর্মীবৃন্দদের বকেয়া ডি.এ. (Dearness Allowance), এমনটাই শোনা যাচ্ছে গত কয়েকদিন ধরে। কিন্তু, আদৌ কি তা সত্য, তাই নিয়ে আশঙ্কায় রয়েছেন সরকারি কর্মচারীরা।

এই বকেয়া ডি.এ. সংক্রান্ত একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত অর্থাৎ সুপ্রিম কোর্টে। হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের রায়ে ডি এ সংক্রান্ত এই দায় মিটিয়ে দেওয়ার কথা বলা হলেও মূলত সেই রায়ের রিভিউ পিটিশন (Review Petition) খারিজ করেছে সুপ্রিম কোর্ট।

Advertisement

চলতি ডিসেম্বর ব্যাপী অচল ট্রেন চলাচল ব্যবস্থা, আশাহত নিত্যযাত্রী, বিক্ষোভ আমজনতার।- Local Train cancelled.

বিগত  মামলার  শুনানির সাথে -সাথে এর সুরাহা উঠে আসতে ব্যয়ও হয়েছে বহু বছর। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে SLP-তে তার দশটি ভুলের জন্য হাইকোর্টে দায়ের হয় মূলত কনটেম্পট মামলা (Contempt Litigation). কিন্তু, সরকার তড়িঘড়ি সেই ভুল শুধরে পুনরায় হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাজির হন সুপ্রিম কোর্টে।

তার দরুন রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া কনটেম্পট মামলা এই মুহূর্তে একেবারেই গুরুত্বহীন।এই পরিস্থিতিতে সরকারি কর্মী সংগঠন আইনি পন্থা অবলম্বন করে রাজ্য সরকারের ওপর ক্রমাগত আইনি চাপ সৃষ্টি করতে থাকে।

কেননা, পুরোনো সরকারি বেতন কাঠামোতে ডি এ (Dearness Allowance) যখন প্রায় ১২৫ ভাগ হয়ে যায়, তখনই হঠাৎ করে ২০২০ সাল থেকে নতুন সরকারি বেতন কাঠামো চালু করে দেওয়া হয়। এই নতুন বেতন সূচী অনুযায়ী, রাজ্য বিধানসভা ভোটের আগে পর্যন্ত ২০২১ সালের জানুয়ারি মাসে সরকারি কর্মীদের জন্য ৩ শতাংশ Dearness Allowance ঘোষণা করা হলেও ২০২২ সালে এ ব্যাপারে নতুন করে কোনোরূপ ঘোষণা করা হয়নি।

Aadhar PAN card link – আধারের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক না করলে লেট-ফি হিসাবে দিতে হতে পারে ১০,০০০ টাকা। কীভাবে করবেন আধার ও প্যান লিঙ্ক দেখে নিন।

কেন্দ্রীয় সরকার তার কর্মচারীদের যেখানে বার্ষিক দু’বার ডি এ দিয়ে থাকে, সেখানে রাজ্য সরকার এ ব্যাপারে কোনো উৎসাহ দেখাননি। পাশাপাশি এই মুহূর্তে, রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের ডিএ -এর পার্থক্য প্রায় ৩৫ শতাংশ ‌-এর মতো।

নবান্ন উচ্চ আধিকারিকের মতানুযায়ী, কেন্দ্রীয় হারে এই মুহূর্তে ডিএ (Dearness Allowance) মেটানো কোনোভাবেই সম্ভব নয়।কারণ হিসেবে রাজ্যের শোচনীয় আর্থিক অবস্থার হাল ও সুপ্রিম কোর্টের তদারকিকে দায়ী করা যায়। সুতরাং, আইনি চাপের কোপ সামলে উঠতে একপ্রকার টান পড়ছে মূলত রাজ্যের সরকারী কোষাগারে।

অতএব, রাজ্য সরকার যত দ্রুত সম্ভব এর থেকে রেহাই পেতে ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে থেকে কিছু পরিমাণ ডিএ (Dearness Allowance) মিটিয়ে দেবেন বলে জানিয়েছেন যাতে কর্মীদের ক্ষোভ কিছুটা লাঘব হয়। কিন্তু, ডি এ -এর পরিমাণ সম্পর্কে এ পর্যন্ত খোলসা করে কিছু জানাননি রাজ্য সরকার।

Dearness allowance: রাজ্যে ডিএ মামলায় নয়া মোড়!কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশের পুনর্বিবেচনার আর্জি রাজ্যের

অনেকের মতানুযায়ী, ২০২১ সালের নির্ধারিত ৩ শতাংশ ডিএ (Dearness Allowance) পুনরায় লাগু হতে পারে , আবার, অনেকের অনুমান এর থেকে বেশিও Dearness Allowance পাওয়া যেতে পারে বলে। অনেকেরই আশঙ্কা এটি আসন্ন পঞ্চায়েত ভোটের পূর্বে কর্মীদের দেওয়া টোপ মাত্র।

আদতে এই মুহূর্তে কোনো ডিএ (Dearness Allowance) পাওয়া যাবে বলে ভাবতে পারছেন না সরকারি কর্মচারীবৃন্দ। আপাতত ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসের ওপরই ভরসা তাদের। তখনই যাচাই হবে রাজ্য সরকারের নির্দেশিত এই ডিএ সংক্রান্ত তথ্যের সত্যতা। ডিএ সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের জন্য ফলো করতে ভুলবেন না আমাদের ওয়েবসাইট সকালের বার্তাকে।
Written by Arpita Sen.

সকালের বার্তার নিউজ সবার আগে পেতে Follow করুন সকালের বার্তার গুগল নিউজ, সকালের বার্তা ফেসবুক পেজ, সকালের বার্তা টেলিগ্রাম গ্রুপWhatsApp Group.

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *