কেন্দ্রের নির্দেশে PM Kisan Yojana এর প্রকল্পের টাকা ফেরত দিতে হবে রাজ্যবাসীকে।

PM Kisan Yojana সুবিধাভোগী ভুয়ো কৃষকদের শেষ হবে সুখের দিন, দুর্নীতি রুখতে এবার বদ্ধপরিকর প্রশাসন ব্যবস্থা , আদৌ কি হাল ফিরবে দেশের

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী প্রকল্পিত  পি এম  কিষাণ (PM Kisan Yojana) যোজনার অধীনে শুরু হয়েছিল আর্থিকভাবে দুর্বল কৃষকদের বার্ষিক ৬,০০০ টাকা ভাতা দেওয়ার ব্যবস্থা। কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রক দ্বারা গবেষণায় জানা গিয়েছে, দেশের প্রায় ৮৬ লক্ষ কৃষকের মধ্যে প্রায় ২১ লক্ষ স্বার্থান্বষী মানুষ ভুয়ো কৃষক হিসেবে জ্বাল কাগজপত্র মারফৎ উক্ত সুবিধার লাভ উঠিয়ে চলেছেন দিনের-পর-দিন।

শুধু তাই নয়, অসৎ উপায় অবলম্বন করে পরিবারের সদস্যদেরও নাম নথিভুক্ত করে উপভোগ করে চলেছেন পি এম কিষাণ প্রকল্পের (PM Kisan Yojana) সেই বার্ষিক ৬ হাজার টাকা। এই দেখে আশ্চর্যচকিত  রাজ্যের মন্ত্রীসভা থেকে শুরু করে কৃষিমন্ত্রীসহ সকলেই। কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রকের রিপোর্ট অনুযায়ী, দেশের প্রায় ১০ কোটি কৃষক এই প্রকল্পের অধীনস্থ রয়েছেন।

Advertisement

Aadhar PAN card link – আধারের সাথে প্যান কার্ড লিঙ্ক না করলে লেট-ফি হিসাবে দিতে হতে পারে ১০,০০০ টাকা। কীভাবে করবেন আধার ও প্যান লিঙ্ক দেখে নিন।

এই প্রকল্পের (PM Kisan Yojana) জন্য রাজ্য সরকারের তরফ থেকে বরাদ্দ হয়েছিল ২১ হাজার কোটি টাকা।‌ আয়কর ও অন্যান্য হিসেব নিষ্পত্তির সময়ই বিহারের ডি. বি. ডি. এগ্ৰিকালচার (D.B.D Agriculture) ওয়েবসাইট মারফৎ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কৃষিমন্ত্রকের সামনে উঠে আসে সেই ভুয়ো কৃষকদের অসততা।

ফলস্বরূপ উক্ত দুর্নীতির প্রতিকার হিসেবে অবিলম্বে ফেরৎ চাওয়া হয় সেই অসততার বার্ষিক ৬ হাজার টাকা। পাশাপাশি স্থানীয় কৃষি অধিদপ্তরে প্রকাশ করতে হবে টাকা ফেরতের রসিদসহ (Slip) প্রমাণপত্র। নির্দেশের কোনোরূপ অবমাননা হলেই বঞ্চিত হতে হবে ভাবি সরকারি পরিকল্পনার সমস্ত সুযোগ-সুবিধা থেকে – সতর্ক বার্তা কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রকের।

E shram card বা ই শ্রম কার্ড থাকলে অ্যাকাউন্টে ২০০০ টাকা করে ঢুকছে! না ঢুকলে কিভাবে আবেনন করবেন জেনে নিন

পি এম কিষাণ (PM Kisan Yojana) নামক এই জনমুখি প্রকল্পের আওতাধীন সমস্ত খুঁটিনাটি তথ্য নিম্নে বর্ণিত হল
১. ১০ হাজার টাকার অতিরিক্ত পেনশন‌প্রাপ্ত কৃষকরা কোনোমতেই নথিভুক্ত হতে পারবেন না এই প্রকল্পে।
২. অপেক্ষাকৃত অভিজাত শ্রেণির পেশার সাথে যুক্ত কৃষক পরিবার এই প্রকল্প বহির্ভূত।

৩.নথিভুক্ত কৃষকদের নিজস্ব জমি থাকা অত্যাবশ্যক,লিজ বা ভাগচাষিদের ক্ষেত্রে এই প্রকল্পে আবেদন করা যাবে না।
৪.সরকারি চাকুরিরত পরিবারের কৃষক সদস্য এই প্রকল্প বহির্ভূত।
৫.কৃষকদের ব্যক্তিগত জমি থাকা বাধ্যতামূলক, পারিবারিক সদস্যদের জমি এক্ষেত্রে কোনোভাবেই মান্যতা পাবে না।
এই সম্পর্কিত অন্যান্য খবরের আপডেট সবার আগে পেতে হলে এই ওয়েবপোর্টালটি ফলো করতে ভুলবেন না।
Written by Arpita Sen.

জনধন অ্যাকাউন্ট থাকলেই মিলবে ১০ হাজার টাকা! কী ভাবে আবেদন করবেন জানুন।

সকালের বার্তার নিউজ সবার আগে পেতে Follow করুন সকালের বার্তার গুগল নিউজ, সকালের বার্তা ফেসবুক পেজ, সকালের বার্তা টেলিগ্রাম গ্রুপ

Advertisement

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *