Lakhi Bhandar – লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পে ৫০০ টাকার পরিবর্তে ২,০০০ টাকা করে পাবেন, জানালেন কংগ্রেস নেতা।

Advertisement

Lakhi Bhandar – রাজ্যের মহিলাদের আর্থিক ভাবে স্বনির্ভর করে তোলার জন্য মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লক্ষীর ভান্ডার (Lakhi Bhandar) প্রকল্প চালু করেছেন। এই প্রকল্প চালু করার উদ্দেশ্য হল মহিলারাও যাতে পুরুষদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে সংসারের হাল ধরতে সক্ষম হন। রাজ্যের পুরুষদের মতোই প্রতিটি নারীকেও আর্থিক ভাবে কিছুটা হলেও স্বাবলম্বী করে তুলতে ২০২১ সালে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার এই স্বপ্নের প্রকল্প চালু করেছেন। এই প্রকল্পের মাধ্যমে সংরক্ষিত শ্রেনির মহিলারা প্রতি মাসে ১,০০০ টাকা করে পাচ্ছেন এবং সাধারণ শ্রেনির মহিলারা ৫০০ টাকা করে পাচ্ছেন।

WhatsApp Group Join Now
Telegram Group Join Now

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাধের ‘লক্ষ্মীর ভাণ্ডার’ (Lakhi Bhandar) প্রকল্প বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। দুয়ারে সরকার কর্মসূচিতে লক্ষ্মীর ভাণ্ডার প্রকল্পে সবথেকে বেশি আবেদন জমা পড়েছে। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে গ্রামের মহিলা ভোটারদের মন জয় করতেই এই প্রকল্প চালু করেছেন বলে একাংশের ধারনা। তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পরই মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যে এই প্রকল্প (Lakhi Bhandar) চালু করেছেন। বর্তমানে আমাদের রাজ্যের প্রায় ১ কোটি ৯০ লক্ষ মহিলা এই প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের যতগুলি জনমুখী প্রকল্প রয়েছে তার মধ্যে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প সব চাইতে বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।

আরও পড়ুন – Ladli Behna Yojana – কেন্দ্রীয় নতুন প্রকল্পে মহিলারা মাসে পাবেন ১ হাজার টাকা।

Lakhi Bhandar status check.

Advertisement

তবে খুব শীঘ্রই লক্ষীর ভান্ডার (Lakhi Bhandar) প্রকল্পে নয়া মোড় আসতে চলেছে। সূত্র মারফত খবর বর্তমানে রাজ্যের মহিলারা লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতি মাসে যে পরিমাণ ভাতা পাচ্ছেন আগামী দিনে সেই ভাতার পরিমাণ বৃদ্ধি করা হবে। বর্তমানে রাজ্যের মহিলারা প্রতি মাসে ৫০০ টাকা করে পাচ্ছেন, আগামী দিনে সেই জায়গায় তারা ২,০০০ টাকা করে মাসিক ভাতা পাবেন। হ্যা লক্ষীর ভান্ডার (Lakhi Bhandar) প্রকল্পকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি সরকার সূত্রে এমনই এক খবর জানা গিয়েছে। আর এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই রাজ্যের মা বোনেদের মধ্যে এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে শোরগোল পড়ে গেছে।

Advertisement

তবে তৃণমূল সরকার লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের (Lakhi Bhandar) টাকার পরিমাণ বৃদ্ধি করছে না। কংগ্রেস দল ক্ষমতায় আসলে এই উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে এক কংগ্রেস দলনেতা দাবি করেছেন। সম্প্রতি এক রাজনৈতিক সম্মেলনে পশ্চিমবঙ্গের প্রাচীন ও স্বনামধন্য কংগ্রেস নেতা নেপাল মাহাতো লক্ষীর ভান্ডার (Lakhi Bhandar) প্রকল্পকে নিয়ে এই রাজ্যের মহিলাদের এমন এক প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন আগামী দিনে যদি কংগ্রেস এই রাজ্যের ক্ষমতায় আসে তাহলে তারা রাজ্যের মহিলাদের লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পের মাধ্যমে পাওয়া ভাতার পরিমাণ চারগুণ বৃদ্ধি করবেন।

আসলে বহু বছর পার হয়েছে কংগ্রেস এই রাজ্যের শাসক দলের ক্ষমতা হারিয়েছে। তাই এই দীর্ঘ সময়ের পর পুনরায় এই রাজ্যের শাসক দলের ক্ষমতায় ফেরার লোভেই কংগ্রেস নেতা এই ধরনের বেফাঁস মন্তব্য করেছেন।কংগ্রেস নেতার এই রুপ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এই রাজ্যের মহিলাদের হাত করে ভোট কেনার ফাঁদ বলে মনে করছেন অনেকে। তবে তিনি যে কারনেই এই রূপ প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকুন না কেন তার দেওয়া এই প্রতিশ্রুতি যে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য রাজনীতিতে তৃণমূল সরকারের ক্ষমতা হারানোর আশঙ্কার ঝড় তুলেছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

রাজ্যের রাজকোষাগারে হাজার আর্থিক টানাপোড়েন থাকা সত্ত্বেও মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী লক্ষীর ভান্ডার (Lakhi Bhandar) প্রকল্পের সুবিধা দিয়ে চলেছেন। এমনকি মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিয়েছেন যে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প কোন ভাবেই বন্ধ করা হবে না। এই লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প (Lakhi Bhandar) নিয়ে বিজেপি নেতারা মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি।বাংলার মানুষের মুখ বন্ধ করার জন্যই নাকি লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্প চালু করেছে রাজ্য সরকার এহেন মন্তব্যও করেছেন বিজেপি নেতারা। তবে এবারে পশ্চিমবঙ্গের কংগ্রেস নেতার এই রুপ বক্তব্যের কি পরিনতি হয় এখন সেটাই দেখার।

অন্যদিকে কর্নাটকে সদ্য শেষ হওয়া পঞ্চায়েত ভোটে বিজেপি সরকারকে হারিয়ে কংগ্রেস সিদ্ধারামাইয়া সরকার ক্ষমতায় এসেছে। সিদ্দারামাইয়া সরকার ক্ষমতায় আসার পর পশ্চিমবঙ্গের লক্ষীর ভান্ডার (Lakhi Bhandar) প্রকল্পের অনুকরনে কর্নাটকের মহিলাদের জন্যেও “গৃহলক্ষী প্রকল্প” চালু করেছেন। এর পাশাপাশি কর্নাটকের জনগনের কল্যানার্থে বেশ কিছু প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন।

আরও পড়ুন – Free Ration Scheme – সামান্য ভুলে, ৩০ জুন পর থেকে ফ্রি রেশন বন্ধ, রেশন পেতে তাড়াতাড়ি এই কাজটি করুন।

Advertisement